Main Menu

যশোরে ডেঙ্গু রোগী ২০০ ছাড়িয়েছে

শাহীন চাকলাদারের উদ্যোগে ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চালু হচ্ছে পৃথক ইউনিট

সুমন চক্রবর্তী,নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতোমধ্যে এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে গেছে। গতকাল রাতেও যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৬৩ জন। এতো বিপুল সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী নিয়ে বিপাকে পড়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার। তার নিজ উদ্যোগে হাসপাতালের একটি ভবনে গড়ে তোলা হচ্ছে ‘ডেঙ্গু কর্নার’। এজন্য ইতোমধ্যে কার্যক্রম শেষ হয়েছে। আজ এ কর্নারের উদ্বোধন করা হবে। এছাড়া ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তদের সূচিকিৎসা নিশ্চিত করতে শাহীন চাকলাদার পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় এনএস-১ ডিভাইজ বা কীটও সরবরাহ করছেন।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু বলেন, হাসপাতালে স্থান স্বল্পতায় প্রতিটি ওয়ার্ডে সাধারণ রোগীদের পাশে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। কিন্তু এতে সাধারণ রোগীদের ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার জানতে পেরে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় হাসপাতালের একটি ভবনের দুটি ইউনিট পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে রোগী রাখার উপযুক্ত করে দিয়েছেন। গতকাল তিনি সার্বিক পরিস্থিতি দেখতে হাসাপাতালে আসেন। আজ এই ইউনিটের উদ্বোধন করা হবে।
হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যশোর জেনারেল হাসপাতালে সবসময় বেডের চেয়ে বেশি রোগী ভর্তি থাকেন। কিন্তু ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব শুরু হলে সেই সংখ্যা অনেক বেশি হয়ে গেছে। এজন্য রোগী রাখার যায়গা পাওয়া যাচ্ছে না। বাধ্য হয়ে ডেঙ্গু রোগী ও সাধারণ রোগীদের পাশাপাশি রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদারের এ মহত উদ্যোগের ফলে ডেঙ্গু রোগীদের এক জায়গায় রেখে চিকৎসা দেয়া যাবে। এতে অন্য রোগীদের যেমন আক্রান্তের ঝুঁকি কমবে, তেমনি চিকিৎসার উপযুক্ত পরিবেশও নিশ্চিত হবে।

এদিকে, গতকাল দুপুরে ডেঙ্গু কর্নারের কাজের অগ্রগতি দেখতে ও ডেঙ্গু রোগীদের খোঁজ-খবর নিতে হাসপাতালে যান জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার। এ সময় তার সাথে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি একেএম খয়রাত হোসেন, দপ্তর সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রেজাউল ইসলাম, উপ-প্রচার সম্পাদক জিয়াউল হাসান হ্যাপী, সদস্য শাহারুল ইসলাম, শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী শহিদুল হক শাহিন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এসএস ইউসুফ শাহিদ, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নিয়ামত উল্যাহ, সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহাজাহান কবির শিপলু, সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী প্রমুখ।

যশোর জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় মোট ৩২ জনের শরীরে এডিস মশার জীবাণু শনাক্ত হয়েছে। গতকাল পর্যন্ত সরকারি ও বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন আছেন ৯২ জন। এর মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ৬৩ জন ও বেসরকারি ক্লিনিকে ২৯ জন। গত ২১ জুলাই থেকে গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেছে ২১৬ জন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*