Main Menu

পেকুয়া সড়কে ফিটনেস বিহীন বাস চলাচলের চেষ্টা, দুর্ঘটনার শংকা! 

মোঃ হাসেম পেকুয়া প্রতিনিধি ঃ

 

পেকুয়ায় সুপার সার্ভিস পরিবহনের ১৯ টি বাসের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ রুজু করা হয়েছে। চট্রগ্রাম বাঁশখালী ও মগনামা সড়কে চলাচলরত ওই সার্ভিসের ১৯ টি বাসে নেই ফিটনেস। লক্করÑঝক্কর গাড়ী সড়কে চলাচল করছে। এতে করে যাত্রী ভোগান্তি চরম আকার ধারন করেছে। সড়ক থেকে ফিটনেস বিহীন এ সব বাস বন্ধ করতে সুপার সার্ভিস পরিবহনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ প্রেরিত হয়েছে। অপর বাস মালিক কর্তৃপক্ষ সান লাইন পরিবহন সার্ভিস ওই অভিযোগ রুজু করে।

 

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরে পৃথক অভিযোগ রুজু হয়েছে। ৩ জুলাই (বুধবার) সানলাইন সার্ভিস পরিচালনা পরিষদ এ অভিযোগ পৌছায়। সুত্র জানায়, চট্রগ্রাম থেকে সুপার সার্ভিস নামক পরিবহনের সার্ভিস বাস সড়কে যাতায়াত করছে। ওই সার্ভিসের এ সব বাস চট্রগ্রাম থেকে বাঁশখালী হয়ে পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়নে প্রবেশ করছে। টইটং বাজারে ওই সার্ভিসের বাস কাউন্টার আছে। চট্রগ্রাম টু টইটং পর্যন্ত ওই সার্ভিস সড়কে চলাচল করে।

 

ওই সার্ভিসের একাধিক বাস সার্ভিস রয়েছে। অভিযোগ সুত্র জানায়, সুপার সার্ভিস পরিবহনের অধিকাংশ বাস ফিটনেস বিহীন। লক্কর-ঝক্কর গাড়ী তারা সড়কে চলাচল করাচ্ছে। বিশেষ করে ওই পরিবহনের অধিকাংশ বাস পুরানো ও অকার্যকর। মেয়াদ উত্তীর্ণ এ সব গাড়ী পুরাতন ক্রয় করে। কর্তৃপক্ষ অবকাঠামো ও রং ছিটিয়ে বিকল এ সব বাসকে চাকচিক্য করে সড়কে নামিয়েছে। এ দিকে চট্রগ্রাম থেকে টইটং পর্যন্ত ওই সার্ভিসের যাতায়াতের পরিধি নির্দিষ্ট ছিল। সম্প্রতি  সুপার সার্ভিস নামক বাস মগনামা জেটিঘাট থেকে চট্রগ্রাম অভিমুখে চালু করার প্রচেষ্টা চলছে। আঞ্চলিক মহাসড়কের যাতায়াত রত ওই সার্ভিসের গাড়ী মগনামা বানিয়ারছড়া সড়কে চলাচলের উদ্যোগ হাতে নেয়। সুত্র জানায়, গত ঈদের পরদিন ওই সার্ভিসের সম্প্রসারন কার্যক্রম আরম্ভ করার দিনক্ষন নির্দিষ্ট ছিল।

 

তারা মগনামা জেটিঘাটে কাউন্টারও খুলে ফেলে। তবে গাড়ীর ফিটনেস ও যাত্রী সেবার মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। এ সময় স্থানীয় যাত্রীগন ওই সার্ভিসের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। মগনামা জেটিঘাটে যাত্রী ও সুপার সার্ভিস পরিবহনের কর্মচারীদের মধ্যে হাতাহাতি হয়েছে। তুমুল বাকবিতন্ডা ও তোপের মুখে ওই সার্ভিসের কার্যক্রম মগনামা জেটিঘাট থেকে গুটিয়ে ফেলে। টইটং থেকে চট্র্রগ্রাম পর্যন্ত ঠিকই সুপার সার্ভিস নিয়মিত যাতায়াত করছে। অপরদিকে চট্রগ্রাম ও দক্ষিন চট্রগ্রামের সড়ক দিয়ে সান লাইন পরিবহন সার্ভিস চলাচল করছে। গত ২ বছর ধরে ওই সার্ভিসের বাস গাড়ী মগনামা জেটিঘাট থেকে চট্রগ্রাম পৌছে। একই ভাবে চট্রগ্রাম থেকে সানলাইন সার্ভিস মগনামা জেটিঘাটে নিয়মিত চলাচল করছে। যাত্রী সেবা সুগম করতে সানলাইন কর্তৃপক্ষ দৃষ্টিনন্দন কার্যক্রম গ্রহন করেছে। বাসগুলি বিদেশ থেকে আমদানীকৃত।

অত্যন্ত মনোরম ও গতিশীল এ সব বাস প্রতি ১৫ মিনিট পর পর কাউন্টার থেকে চট্রগ্রাম ও মগনামা জেটিঘাট অভিমুখ হচ্ছে। সুত্র জানায়, সুপার সার্ভিসের ১৯ টি গাড়ী বিকল।

 

এ সব বাস সক্রিয়করন করে সড়কে চলাচল করছে। যে কোন মুহুর্তে এ সব দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে। সড়ক নিরাপদ ও সুরক্ষিত রাখতে সানলাইন কর্তৃপক্ষ পেকুয়ার সড়ক থেকে সুপার সার্ভিসের বাস গুলি গুটিয়ে ফেলতে প্রশাসনকে লিখিত এ অভিযোগ পৌছায়।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*