Main Menu

নড়াইলে কবর থেকে কলেজ ছাত্রের লাশ উত্তোলন ও গুল খেয়ে একজনের মৃত্যু

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■:

নড়াইলের এলাহি মোল্যা (১৬) নামে এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যুর চার মাস পর সকাল ১১টার দিকে ময়না তদন্তের জন্য কবর থেকে লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। তার পিতা কলাবাড়িয়া গ্রামের রব্বানী মোল্যার দায়েরকৃত হত্যা মামলায় ময়না তদন্তের জন্য আদালতের নির্দেশে ওই লাশ উত্তোলন করা হয়েছে।

আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ২৩ মার্চ বিকাল ৩টার দিকে জেলার নড়াইলের নড়াগাতী থানার কলাবাড়িয়া গ্রামের মৃত ফরমান মোল্যার পুত্র জমির মোল্যাসহ দুর্বৃত্তরা গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু কলেজের এইচএসসি প্রথমবর্ষের ছাত্র এলাহি মোল্যাকে (১৬) রাস্তা থেকে ডেকে নিয়ে একই গ্রামের ফিরোজা বেগমের বাড়িতে একটি ঘরে আটকে রেখে মারধর করে ও ্ৈবদ্যুতিক শক দিয়ে হত্যা করা হয়। এ সময় তার বাবা রব্বানী মোল্যা নড়াইল আদালতের জিআর ৩৬/১৯ নম্বর মামলায় জেলহাজতে ছিলেন। তিনি জামিনে মুক্ত হয়ে হাজত থেকে বেরিয়ে এসে গত ১৩মে নড়াইল আদালতে তার ছেলে এলাহিকে হত্যার অভিযোগ দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে নড়াইলের নড়াগাতি থানা পুলিশ অভিযোগটি একটি নিয়মিত মামলা হিসাবে নথিভুক্ত করে।

কবরস্থান থেকে এলাহির লাশ উত্তোলনের সময় নড়াইলের কালিয়ার সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো.নাজিবুল আলম, নড়াইলের নড়াগাতি থানার ওসি মো. আলমগীর কবির ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই খান মাহাবুবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

নড়াইলের নড়াগাতি থানার ওসি মো.আলমগীর কবির, আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়কে জানান, ‘যেহেতু এলাহির মৃত্যুর ঘটনায় একটি হত্যা মামলা রুজু হয়েছে। সেহেতু মৃত্যুর প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘাটন করতে ময়না তদন্তের জন্য কবর থেকে লাশ উত্তোলন করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।’ নড়াইলের কালিয়ায় গুল খেয়ে ছবেদ শেখ (৫৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। কালিয়া হাসপাতালে বিকাল সাড়ে তিনটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়।

সে উপজেলার সালামাবাদ ইউপির ভাউড়িরচর গ্রামের মৃত আদত্য শেখের ছেলে। পারিবারিক কলহের জেরে দুপুরে প্রচুর পরিমাণ গুল খেয়ে সে অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। তখন পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। কোন অভিযোগ না থাকায় পরিবারের সদস্যদের নিকট পুলিশ লাশ হস্তান্তর করেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*