Main Menu

দুই দিন ধরে সূর্যের দেখা মেলেনি যশোরে! প্রচন্ড শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

সুমন চক্রবর্তী,যশোর জেলা প্রতিনিধি।। যশোরে দুই দিন ধরে সূর্যের দেখা নেই। গুমোট আবহাওয়ার মধ্যে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত থেমে থেমে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার ভোর থেকে বৃষ্টি না হলেও সকাল থেকেই কুয়াশার চাদরে ঢাকা ছিলো যশোরের আকাশ। সারাদিন কোথাও সূর্যের দেখা মেলেনি। প্রচন্ড শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। খুব একটা জরুরি কাজ ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছেন না কেউ। তবে শ্রমিক শ্রেণির মানুষজনকে বাধ্য হয়ে রাস্তায় দেখা গেছে।
যশোর বিমান বাহিনীর আবহাওয়া অফিস মতে, বৃহস্পতিবার যশোরে সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ছিলো ১১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ ছিলো ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শুক্রবার যশোরে তাপমাত্রা ১১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বোচ্চ ১৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে ১৪ মিলিমিটার বৃষ্টির রেকর্ড করা হয়েছে। দেশের সর্ব নি¤œ তাপমাত্রা ছিলো তেঁতুলিয়ায় ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
যশোর শহরের দড়াটানায় রিকসা চালক জামশেদ গাজী বলেন, এবার পৌষের প্রথম থেকে যশোরে জেঁকে বসেছে শীত আর কুয়াশা। গত দু’দিন যশোরে সূর্যের দেখা যায়নি। অন্যান্য ছুটির দিনে বিভিন্ন পার্কে জনসাধারণের চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও গতকাল পার্কগুলোতে মানুষের চলাচল ছিলো অনেক কম।
চৌগাছা থেকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা সালাম হোসেন বলেন, কয়েকদিনের তীব্র শীতে জনজীবন জবুথবু হয়ে যাচ্ছে। ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছি।
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু জানান, গত কয়েক দিনের চেয়ে তীব্র শীতে গতকাল ঠান্ডা জনিত রোগী বেশি চিকিৎসা নিয়েছে। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক রোগীরা বেশি। ঠান্ডাজনিত রোগ থেকে রক্ষা পেতে গরম কাপড় পরিধান এবং প্রয়োজনের বাইরে ঘর থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*