Main Menu

ঠাকুরগাঁওয়ের মমতাজুর আলম উচ্চতর প্রশিক্ষণে চীনে যাচ্ছেন

জাকির হোসেন বিশেষ প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও  : ঠাকুরগাঁওয়ের ছেলে
মমতাজুর আলম উচ্চতর প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য চীনে যাচ্ছেন।

বুধবার (২৮ শে আগষ্ট) তিনি চীন সফরে যাবেন। মর্ডান স্কুল ম্যানেজম্যান্ট শীর্ষক প্রশিক্ষণ জন্য
বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের ৩৫ জন কর্মকর্তা চীন সফরে যাবেন।

মমতাজুর আলম পঞ্চগড় সদর উপজেলার উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর। তিনি পঞ্চগড়
জেলার শ্রেষ্ঠ ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর নির্বাচিত হয়ে মর্ডান স্কুল ম্যানেজম্যান্ট শীর্ষক প্রশিক্ষণ গ্রহনের জন্য চীন সফরে যাচ্ছেন।

মমতাজুর আলম ঠাকুরগাঁও শহরের হলপাড়া মহল্লায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম প্রয়াত অ্যাডভোকেট আব্দুল আজিজ ও মাতা মাজাহারুন
নেছা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে সম্মানসহ স্নাতোকত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন মমতাজুর আলম।

পাশাপাশি বিএড কোর্সও সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে তিনি পঞ্চগড় সদর উপজেলার রিসোর্স সেন্টারে ইন্টট্রাক্টর পদে কর্মরত আছেন। এ কর্মস্থল থেকেই তিনি প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে ২০১৫, ১৬, ১৭ সালে জেলার শ্রেষ্ঠ ইউআরসি ইন্টট্রাক্টর নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ২০০৪ সালে সরকারী
চাকুরীতে যোগদান করেন। ইতিপূর্বে বোদা উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে কর্মরত ছিলেন। শুধু জীবিকা অন্বেষণের জন্য এই পেশা তিনি গ্রহণ
করেননি। শিক্ষাকে একটি কাঙ্খিত মানে পৌঁছাতে তিনি সদা সচেষ্ট। পেশাগত জীবনে তিনি তাঁর দায়িত্ব অত্যন্ত সুচারুভাবে পালন করে থাকেন।

তিনি তাঁর রুটিন দায়িত্বের বাইরেও কীভাবে মানসম্মত ও একীভূত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করা যায়, সে জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
এছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান ও দক্ষতা শ্রেণিকক্ষে প্রয়োগ, শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ-চাহিদা নিরূপণ, বিদ্যালয়সমূহে শতভাগ মিড-ডে মিল চালু, শিশুদের পঠন ও লিখন দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ, শতভাগ স্কুলড্রেস নিশ্চিতকরণ, ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরি ও শ্রেণিকক্ষে এর ব্যবহার নিশ্চিতকরণ, স্থানীয় সহজলভ্য ও ফেলে দেয়া জিনিস দিয়ে শিক্ষা
উপকরণ তৈরি, ব্যবহার ও ব্যবহারের পর তা সংরক্ষণ- কৌশল, প্রতিদিন শিশুদের একটি করে বাংলা ও
ইংরেজি শব্দ শেখানো ইত্যাদি বিষয়ে শিক্ষকদের সার্বিকভাবে সহায়তা প্রদান করে থাকেন। প্রাথমিক শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নে বিভিন্ন কর্মস্থলে মমতাজুর আলম তার দক্ষতার স্বাক্ষর
রেখেছেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*