Main Menu

চকরিয়ায় ফুটবল মাঠ জবর দখলের অভিযোগে মানববন্ধন

আবদুল করিম বিটু, চকরিয়া

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ছড়ারকুলের উম্মুক্ত ফুটবল মাঠ জবর দখলের অভিযোগে জমির কথিত মালিক দাবীদারের সশস্ত্র হামলার মুখে স্থানীয় ফুটবল খেলোয়াড় সমিতি তাৎক্ষনিক মহাসড়কে মানব বন্ধন করেন।

১৭ আগষ্ট শনিবার সকাল ৮টায় শুরু হওয়া এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন স্হানীয় খেলোয়াড় আহত হয়েছে।

সরেজমিনে চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালী ছড়ারকুল এলাকায় ফুটবল মাঠে গিয়ে দেখা যায়, ৫০/৬০ জনের একদল লোক দেশীয় দা লাটি, খন্তা ও কোদাল নিয়ে খেলার মাটটি দখল করেনে,এর প্রতিবাদে অর্ধশত কিশোর ও যুবকের দল ফুটবল হাতে মহাসড়কে মানব বন্ধন করে, এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।
উত্তেজনাকর পরিস্থিতির খবর পেয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দীন চৌধুরী পরিষদের চৌকিদার পাঠিয়ে
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।
এক পর্যায়ে চেয়ারম্যানের বিচারের আশ্বাসে জবরদখলকারীরা জমি থেকে উঠে আসতে বাধ্য হয়। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ফুটবল মাঠ দখলের অভিযোগ এনে ফাসিয়াখালী ফুটবল একাদশ সমিতির পরিচয়ে শতাধিক কিশোর-যুবক চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ফাসিয়াখালী ছড়ারকুল এলাকায় মানব বন্ধন করেছে।

মানববন্ধনে নেতৃত্বদানকারী ফাসিয়াখালী ফুটবল একাদশ সমিতির নেতা আবু বক্কর, মোং শাকিল ও হাছান সহ একাধিক যুবক জানায়, চকরিয়া উপজেলার ফাসিয়াখালী ছড়ারকুল চরভরাট জমিটি সরকারের ১ নং খতিয়ানভুক্ত খাস জমি। ওই জমিকে খেলার উপযোগী মাঠ তৈরী করে দীর্ঘ দেড় যুগ ধরে ফুটবল মাঠ হিসাবে ব্যবহার করে আসছিল এলাকার ক্রীড়ামোদি যুবক-কিশোররা। এ মাঠকে ঘিরে ফাসিয়াখালীর একদল তরুন ফাসিয়াখালী ফুটবল একাদশ সমিতির
ব্যনারে একটি সংঘটন তৈরী করে মাঠটির দখভাল ও করে আসছিল । কিন্তু গত ২ বছর ধরে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী জমিটি জবর দখল করার চেষ্টা করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজও মাঠটি জবরদখলের জন্য দা, লাটি, কিরিচ, ও কোদাল নিয়ে জমিতে আইল তৈরী করে দখলে নিতে চেষ্টা চালায়।

এদিকে জবর দখলকারী পক্ষ ফাসিয়াখালী মাদ্রাসা পাড়ার মৃত অলি মিয়ার পুত্র ছৈয়দ আহমদ (৬৫) ও তার চাচাত ভাই মৌলভী আবু ছিদ্দিক জানান, এ জমিটি তাঁদের পৈত্রিক খতিয়ানভুক্ত চরভরাট জমি। দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত থাকার ফলে বেদখল হয়েছিল। তাই জমিটিকে তারা গাছ রোপন করতে চায়।

এ ব্যাপারে ফাসিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দীন চৌধুরী বলেন, ফাসিয়াখালী ৯ নং ওয়ার্ডের ছড়ারকুল খেলার মাঠ নিয়ে বিরোধের কথা আমি শুনেছি। চৌকিদার পাঠিয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত করা হয়েছে।” দুই পক্ষকে ডেকে কাগজ পত্র দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।
এ ঘটনায় এলাকায় দুপক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*