Main Menu

চকরিয়ার আলোচিত নইব্যা চোরার গ্রেফতার নিয়ে ধুম্রজালের অবসান 

 

বিবিসি একাত্তর ডেস্কঃ

কক্সবাজার ডিবি পুলিশের একটিদল বিয়ের ক্লাবে অভিযান চালিয়ে চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের কোরালখালী গ্রামের বাসিন্দা বহুল আলোচিত নবী হোছাইন ওরফে নইব্যা চোরা কে গ্রেফতার করেছে। শুক্রবার বিকালে ডিবির পরির্দশক মানস বড়ুয়ার নেতৃত্বে পুলিশের একটিদল চকরিয়া পৌরসভার পুকপুকুরিয়াস্থ এটিএন পার্ক নামের একটি কমিউনিটি সেন্টার থেকে তাকে গ্রেফতার করেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গতকাল শনিবার বিকালে গরু চুরির একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে ডিবি পুলিশ তাকে চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির করেছে। ওইসময় আদালত মামলার পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য্য করে গ্রেফতারকৃত নবী হোছাইনকে কক্সবাজার জেলা কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার ডিবি পুলিশের ওসি মো.মাহাবুবুর রহমান। তিনি গ্রেফতারকৃত নবী হোছাইন একজন আন্ত:জেলা গরু চোর চক্রের অন্যতম হোতা। তাঁর বিরুদ্ধে চকরিয়া ও পেকুয়া থানায় গরু চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধে একাধিক মামলা রয়েছে। তিনি উপজেলর সাহারবিল ইউনিয়নের কোরালখালী এলাকার মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে।

ওসি বলেন, গরু চুরি সংক্রান্ত চকরিয়া থানার একটি মামলা তদন্ত করছেন ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মানস বড়ুয়া। তদন্তের একপর্যায়ে চুরির ঘটনার সঙ্গে নবী হোছাইনের সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ মেলে। এরই জেরে শুক্রবার চকরিয়া উপজেলা সদরের একটি বিয়ের ক্লাবে অভিযান চালিয়ে নবী হোছাইনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ডিবির ওসি মাহাবুবুর রহমান আরও বলেন, গ্রেফতারের পর নবী হোছাইন আমাদের কাছে গরু চুরি ছাড়াও বিভিন্ন ধরণের অপকর্মে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তবে সে অতীতে এসব অপকর্মে জড়িত থাকলেও এখন ভালো হবার চেষ্ঠা করছেন বলে আমাদেরকে জানিয়েছেন।

মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা ও কক্সবাজার ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মানস বড়ুয়া বলেন, চকরিয়া থানার গরু চুরি সংক্রান্ত একটি মামলায় তদন্তের আলোকে সম্পৃক্ততার অভিযোগে নবী হোছাইনকে গ্রেফতার করা হয়। শনিবার বিকালে তাকে চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে সৌর্পদ্দ করা হয়। ওইসময় আদালত মামলার শুনানীর জন্য পরবর্তী সময় নির্ধারণ করে আসামিকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, মামলার অধিকতর তদন্তের প্রয়োজনে নবী হোছাইনকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার। সেইজন্য আদালতের কাছে পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন জানানো হয়েছে।

এদিকে চকরিয়া থানা পুলিশ জানিয়েছে, নবী হোছাইনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ঘটনায় একাধিক মামলা রয়েছে। তার মধ্যে ২০১৪ সালের ২৬ জুন চুরি ও অনাধিকার প্রবেশের দায়ে মামলা রয়েছে। সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগে ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর পুলিশ বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। অস্ত্র ও গোলাগুলির ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় আরও একটি মামলা রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। ২০১৭ সালের ২৮ এপ্রিল এলাকায় মারামারির ঘটনায় নবী হোসাইনকে প্রধান আসামি করে একটি মামলা করেছেন ভুক্তভোগী পক্ষ।
গত তিন চার মাস পূর্বে পেকুয়ার বলির পাড়া নামক স্থানে ভোরবেলা একটি গরু বোঝায় ট্রাক কে স্থানীয় লোকজন আটকালে, গাড়িতে থাকা চোরের দল লোকজনের উপর এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে গাড়ি ফেলে পালিয়ে যায়। ঐ সময় এক কলেজ ছাত্রী গুলিবিদ্ধ হয়। পরে লোকজন জানতে পারে এটি নব্যা চোরার সিন্ডিকেট সাতকানিয়া থেকে এই গরু গুলো চুরি করে পেকুয়া হয়ে চকরিয়া নিয়ে আসছিল। এবিষয়ে পেকুয়া থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানান।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*