Main Menu

ঈদ করা হলো না আনাস ইব্রাহিমের

আবদুল করিম বিটু, চকরিয়াঃ কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরশহরের সুপার মার্কেটস্থ RX জুতার দোকানের সামনে আজ (২৫ মে) রাত সাড়ে নয়টার দিকে ছিনতাইকারীদের প্রকাশ্যে চুরিকাঘাতে দুইজন আহত হয়। আহতদের একজন আনাস ইব্রাহীম। চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়।

জানাগেছে, আনাস ইব্রাহীম চকরিয়া পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের বিনামারা নিবাসী হাফেজ নেছার আহমদ ও নিজপানখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষীকা তাছলিমা জান্নাতের ছেলে এবং চকরিয়া সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ একেএম গিয়াস উদ্দিনের ভাতিজা। নিহত আনাস চকরিয়া কেন্দ্রীয় উচ্চ বিদ্যালয় থেকে সদ্য এসএসসি পাস করেছে।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, শনিবার সন্ধ্যায় চকরিয়া পৌর সদরে ঈদের কেনাকাটা করতে আসছিলেন আনাস ইব্রাহিম। কেনাকাটা করে রাত সাড়ে নয়টার দিকে বাড়ি ফিরতে সুপার মার্কেটের সামনে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন তিনি। এ সময় হঠাৎ ৫-৬ জন দূর্বৃত্ত অতর্কিত এসে আনাসকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। ছুরিকাঘাতে আনাছের নাড়িভূড়ি বের হয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন আনাসকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে রেফার করেন। পরে চট্টগ্রামে নেওয়ার পথে চুনতি পৌঁছার পর মৃত্যুকূলে ঢলে পড়েন আনাস। বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নিহত আনাসের সঙ্গে থাকা তার বন্ধু ইয়াছির আরাফাত মুন্না।

এদিকে ছুরিকাঘাতের ঘটনার পর চকরিয়া থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে চার যুবককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি ক্ষুর (ছুরি) উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে পুলিশ আটককৃতদের নাম পরিচয় জানাতে পারেনি।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন,চকরিয়া পৌর সদরের ওয়েষ্টার্ণ প্লাজার সামনে এক স্কুল ছাত্রকে ছুরিকাঘাত করে হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন চার যুবককে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি ক্ষুর (ছুরি ) উদ্ধার করা হয়েছে। প্রকৃত আসামীদের ধরতে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*